বাকেরগঞ্জে উন্নয়ন বঞ্চিত রঙ্গশ্রীর একাংশে বর্ষা মৌসুমে আতংকে নিজেরাই দিচ্ছেন সেচ্চা শ্রেম

বাকেরগঞ্জে উন্নয়ন বঞ্চিত রঙ্গশ্রীর একাংশে বর্ষা মৌসুমে আতংকে নিজেরাই দিচ্ছেন সেচ্চা শ্রেম

জাহিদুল ইসলাম: বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১২ নং রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের অবহেলিত জনপদ ৫,৬,৭ নং ওয়ার্ডে লাগনি সরকারি উন্নয়নের ছোঁয়া। ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ এ জনপদপ প্রবেশের রাস্তাঘাট সেই প্রচীন মান্ধাতার আমলকেও হার মানিয়েছে, সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় আউলিয়াপুর, বড়িয়া, নন্দপাড়া, দাওকাঠি এলাকার বিপুল সংখ্যক মানুষের চলাচলের রাস্তাঘাট গুলোর বেহাল দশা, এসব এলাকায় দীর্ঘ ৬/৭ বছরেও কোনো উন্নয়ন চিত্র নজড়ে পড়েনা, ইটের রাস্তার যত্রতত্র খানাখন্দ ভরা ইতিপূর্বে কোনো এক ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মাঝখানে কিছু খোয়া বিছিয়ে গেলেও ৬/৭ বছরে আর কোনো কার্যক্রম পরিলক্ষিত নয়। বর্তমানে ইট উঠে গিয়ে ধুলাবালুতে সয়লাব গাড়ি চলাচল তো দুরের কথা পায়ে হেঁটে চলাচল ও দুরূহ ব্যপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। আসছে বর্ষা মৌসুমে এলাকাবাসীর দিন কাটছে চরম আতংকে। সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম রুস্তম আলী মোল্লার মৃত্যু পরবর্তী এ এলাকাটিতে বর্তমানে ভূতুরে পরিবেশ বিরাজমান। বর্তমানে কেন্দ্রীয় যুবলীগের এক নং যুগ্ম আহবায়ক বিশ্বাস মশিউর রহমান বাদশার বাড়ির সামনের রাস্তা বিবেচনায় অনেকেই অন্ধকারে আশার আলো দেখতে চেয়েছিলো কিন্তু বিগত এক বছরে ও এলাকায় তার কোন ভূমিকা নজরে আসেনি। উল্টো সরকারি বরাদ্দর টি আর, কাবিখা সহ বিভিন্ন কর্মসূচির সকল কার্যক্রম থেকে বঞ্চিত রয়েছে অত্র এলাকার জনগণ। ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের এ বিষয় তেমন মাথাব্যথা নেই বলেই চলে, এ বিষয় তার কাছে জানতে চাইলে তিনি কোনো জবাব না দিয়ে নিরব থেকে পাস কাটিয়েছেন। ভুক্তভোগী গ্রাম বাসী নিরুপায় হয়ে নিজেরাই সেচ্চা শ্রেমের মাধ্যমে যার যার বাড়ির সামনের অংশ মাটি ফেলে আসন্ন বর্ষা মৌসুমে একটু স্ততি পেতে চালিয়ে যাচ্ছেন নিরলস প্রচেষ্টা। এলাকার ভূক্তভোগী জনগন ও সচেতন মানুষ অচিরেই বিষয় টি যথাযথ কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি কামনা করছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *